কমলার বিভিন্ন জাত ও কমলা লেবুর উপকারিতা অপকারিতা

কমলা লেবু ছোট জাতীয় রসালো ফল। কমলার স্বতন্ত্র প্রজাতি গুলোর একটি সদস্য হিসাবে বিবেচিত। কমলা একটি জনপ্রিয় ও সুস্বাদু ফল। এটি সাধারণত সরাসরি খাওয়া হয়। এর স্বাদ কম টক এবং বেশি মিষ্টি ও কড়া বলে বিবেচিত হয়। কমলা লেবুগুলো ছোট এবং আকারে ৪০–৮০ মিলিমিটার বা ১.৬–৩.১ ইঞ্চি হয় । কমলার রঙ কমলা, হলুদা-কমলা বা লালচে-কমলা। অন্যান্য ফলের তুলনায় কমলা লেবুর একটি গুরুত্বপূর্ণ সুবিধা হল এর খোসা চিকন ও নরম সহজেই ছাড়ানো যায়।কমলা লেবু দেখতে যেমন চমৎকার এর পুষ্টিগুণও অনেক। এই ফলটি সবাই খেতে পছন্দ করেন। শীতের কমলা লেবু  বাজারে বেশ সহজলভ্য।

কমলার বিভিন্ন জাত

কমলার বিভিন্ন জাত

বর্তমানে পৃথিবীর প্রায় সর্বত্র কমলার চাষ হয়। বাংলাদেশের সিলেট, পার্বত্য চট্টগ্রাম, রংপুর, পঞ্চগড় জেলায় সীমিত পরিমাণে কমলার চাষ হয়। বাণিজ্যিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ কমলা প্রজাতির মধ্যে রয়েছে সাধারণ বা চীনা কমলা C. sinensis; ম্যান্ডারিন কমলা, C. reticulata যার কয়েকটি জাত ট্যানজারিন নামে পরিচিত; এবং টক বা সেভাইল কমলা C. aurantum। এছাড়া আরো জাত আছে সেগুলা জানতে wikipedia লিংকে ক্লিক করুন ।

কমলা লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা

!-- Purple Patch Asynchronous JS Tag - Generated with Purple Patch v1.0.0 -->

কমলা লেবুর উপকারিতা:- কমলা লেবু খাওয়া শরীরের জন্য বেশ উপকার এবং কমলার অনেকগুলি স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে চলুন জেনে আসি, কমলাতে দ্রবণীয় ফাইবার থাকে। এটি রক্ত ​​স্রোতে শোষিত হওয়ার আগে শরীর থেকে কোলেস্টেরল দূর করে। এটি খারাপ কোলেস্টেরল হ্রাস করে এবং ভাল কোলেস্টেরল বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। কমলা ক্যারোটিনয়েডের সমৃদ্ধ থাকে। এর মধ্যে থাকা ভিটামিন এ চোখের শ্লেষ্মা ঝিল্লি স্বাস্থ্যকর রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে এবং চোখকে আলো শোষণে সহায়তা করে।  ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের কমলা খাওয়া খুব উপকার। যাদের ডায়াবেটিস তারা প্রতি নিয়ত কমলালেবু খান এতে আপনার ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আসতে শুরু করে। কমলায় বেশ পরিমাণে ভিটামিন সি এবং ফাইবার থাকে। যা মেদ বাড়তে দেয়না এবং ওজন বাড়ায় না এতে শরীর ভারসাম্যতা বজায় থাকে।কমলা লেবু তে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট রয়েছে, যা ত্বককে ফ্রি র‌্যাডিক্যাল ক্ষতি থেকে রক্ষা করতে সহায়তা করে এতে ত্বক সুন্দর থাকে। হাড় সম্পর্কিত ব্যাধি রোধ করে ।

এছাড়া কমলা লেবু  তে ডি-লিমোনিন থাকে, এটি এক ধরণের যৌগ। যা ফুসফুসের ক্যান্সার, ত্বকের ক্যান্সার এমনকি স্তনের ক্যান্সারের মতো ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়তা করে। কমলা লেবু তে  উপস্থিত ভিটামিন সি এবং অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টগুলি উভয়ই শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য গুরুত্বপূর্ণ – এগুলি ক্যান্সারের সাথে লড়াই করতে সহায়তা করে। ফলের তন্তুযুক্ত প্রকৃতি এটিকে ক্যান্সার থেকেও রক্ষা করে। কমলা লেবু কিডনির জন্য উপকারী কারণ এতে ভিটামিন সি রয়েছে যা কিডনিতে পাথর প্রতিরোধ করে। কমলা লেবু অবশ্যই আপনার ফলের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করা উচিত।

কমলা লেবুর পুষ্টি:  একটি কমলালেবুতে ৮৫% পানি, ১৩% কার্বোহাইড্রেট, এবং সামান্য পরিমাণে চর্বি এবং প্রোটিন (টেবিল) থাকে। মাইক্রোনিউট্রিয়েন্টগুলির মধ্যে, কেবলমাত্র ভিটামিন সি প্রসঙ্গত ১০০ গ্রাম পরিবেশনে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে ( দৈনিক প্রয়োজনীয়তার ৩২%) থাকে, অন্যান্য সব পুষ্টি উপাদান কম পরিমাণে থাকে।

কমলা লেবুর অপকারিতা:- কমলা লেবু খাওয়া শরীরের জন্য যেমন উপকার তেমনি উপকারিতা ও রয়েছে চলুন জেনে আসি, কমলা খাওয়া গর্ভবতী ও দুগ্ধদানকারী মহিলাদের জন্য উপকারী,তবে যদি সীমিত পরিমাণে খেতে হবে তানাহলে এটি শরীরের ক্ষতি করতে পারে। কমলাগুলিতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে যা স্বাস্থ্যের পক্ষে ভাল। তবে অতিরিক্ত গ্রহণের ফলে পেটে ব্যথা, বাধা সৃষ্টি হতে পারে। হর্টবার্নের সমস্যা ইতিমধ্যে যাদের রয়েছে তাদের কমলা লেবু এড়ানো উচিত। ছোট বাচ্চাদের বেশি কমলা লেবু দেওয়া উচিত নয় কারণ এটি পেটে ব্যথা মতো সমস্যা তৈরি করতে পারে। এবং যারা বিটা ব্লকারগুলি সেবন করেন, তাদের পরিমিতরূপে কমলা খাওয়া উচিত।

Leave a Comment