ডাক্তারদের বিভিন্ন ডিগ্রি

ডাক্তার হল এক ধরনের স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারী যার পেশা শারীরিক বা মানসিক রোগ, আঘাত বা ব্যাধি পর্যবেক্ষণ, নির্ণয় এবং নিরাময়ের মাধ্যমে মানুষের স্বাস্থ্য বজায় রাখা বা পুনরুদ্ধার করা। এঁদের মধ্যে কেউ যদি কোন বিশেষ প্রকারের রোগ (যেমন স্নায়ুরোগাদি, মধুমেহ, হৃদরোগ ইত্যাদি) বা রোগী (যেমন শিশু, পোয়াতি, বৃদ্ধ ইত্যাদি) বা চিকিৎসাপদ্ধতির (যেমন স্নায়ুশল্যচিকিৎসা, ফিজিওথেরাপি ইত্যাদি) চর্চার প্রতি নিবিষ্ট হন তাদের সেই রোগ বা রোগীপ্রকার বা পদ্ধতির বিশেষজ্ঞ বা স্পেশালিস্ট বলা হয়। অন্যরা যাঁরা ব্যক্তিকেন্দ্রিক, পরিবারকেন্দ্রিক, জনগোষ্ঠীকেন্দ্রিক ইত্যাদি বিভিন্ন ভিত্তিতে, বয়স রোগ নির্বিশেষে, ক্রমান্বয়ে বা সর্বতোভাবে সাধারণ মানুষের নানারকম রোগবিকারাদির সাধারণ চিকিৎসা করে থাকেন তাদের জেনারাল প্র্যাক্টিশনার বলা হয়। চিকিৎসকদের প্রধানত দুইটি দলে ভাগ করা যায়: প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা প্রদানকারী চিকিৎসক এবং বিশেষায়িত চিকিৎসা সেবা প্রদানকারী বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক। চলুন নিম্নে জেনে আসি মেডিকেল ডাক্তারদের বিভিন্ন ডিগ্রি সম্পর্কে কিছু তথ্য।

ডাক্তারদের বিভিন্ন ডিগ্রি

এফসিপিএস, এমসিপিএসঃ বিসিপিএসের অধীনে এফসিপিএস ও এমসিপিএস পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এগুলো বাংলাদেশের চিকিৎসাবিদ্যায় স্নাতকোত্তর ডিগ্রি গুলোর মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ বলে বিবেচিত এবং ডাক্তারের সর্বোচ্চ ডিগ্রী হল এটি।  এফসিপিএস পরীক্ষায় দুটি পার্ট—পার্ট-১, পার্ট-২। পার্ট-১ বছরে দুবার অনুষ্ঠিত হয়। পার্ট-১ শেষ করার পর চার বছর ট্রেনিং করে পার্ট-২-এ অংশ নিতে হয়। এমসিপিএস পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার জন্য গ্র্যাজুয়েশনের পর অন্তত চার বছর ট্রেনিং সম্পন্ন করে আবেদন করতে হয়। এমসিপিএস পরীক্ষায় ব্রিটেনের এমআরসিপি বা এমআরসিএস পরীক্ষা পদ্ধতি অনুসরণ করা হয়।

এমএস বা এমডিঃ এমবিবিএস পাসের দুই বছর পর এমএস বা এমডি করার জন্য আবেদন করতে হয়। এই কোর্সটি বিশেষায়িত সরকারি হাসপাতাল এবং প্রথম স্তরের মেডিকেল কলেজে করা যেতে পারে।

এমপিএইচঃ এনআইপিএসওএম, ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি, স্টেট ইউনিভার্সিটি, এনএসইউ, নর্দান ইউভার্সিটি ও এআইইউবি থেকে এ ডিগ্রি নেওয়া যায়। ডব্লিউএইচওসহ বিভিন্ন এনজিওর চাকরির ক্ষেত্রে এই ডিগ্রিকে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়। এ ছাড়া বিভিন্ন বিষয়ে ডিপ্লোমা ও চিকিৎসাবিজ্ঞানের মৌলিক বিষয়গুলোতে উচ্চতর শিক্ষার সুযোগ রয়েছে।

বিভিন্ন মেডিকেল ডিগ্রি

 ইউএসএমএলইঃ ইউএসএ তে বিভিন্ন বিষয়ে ডাক্তারি করতে লাইসেন্স পেতে পরীক্ষায় অংশ নিতে হয়। ইউএসএমএলইর তিনটি ধাপ—ধাপ-১, ধাপ-২ (সিকে, সিএস), ধাপ-৩। ধাপ-১, ধাপ-২ (সিকে) পরীক্ষার দুটি কেন্দ্র বাংলাদেশে আছে। ধাপ-২ (সিএস) ও ধাপ-৩-এর পরীক্ষা ইউএসএতে দিতে হয়। তিনটি ধাপ সম্পন্ন করার পর এমডি ডিগ্রি দেওয়া হয়। উল্লেখ্য, শিক্ষানবিশ থাকাকালে আপনি সম্মানী পাবেন।

এএমসিঃ অস্ট্রেলিয়ায় ডাক্তারি করার জন্য এ পরীক্ষায় অংশ নিতে হয়। এ পরীক্ষার দুটি পার্টের মধ্যে প্রথম পার্টের পরীক্ষার কেন্দ্র ভারতে আছে।

পিএলএবিঃ ব্রিটেনে ডাক্তারি করতে এ পরীক্ষায় অংশ নিতে হয়।

এমআরসিপি বা এফআরসিএসঃ বিশ্বস্বীকৃত সর্বোচ্চ সম্মানজনক ডিগ্রি। ব্রিটেনের রয়েল কলেজ অব ফিজিশিয়ানস থেকে এ ডিগ্রি দেওয়া হয়। এমআরসিপি বা এফআরসিএসের পরীক্ষার কেন্দ্র বাংলাদেশে আছে। এ ছাড়া কানাডা (এমসিসি), সৌদি আরব, ইরান, নিউজিল্যান্ডসহ প্রভৃতি দেশে বাংলাদেশি চিকিৎসকেরা উচ্চশিক্ষার পাশাপাশি ডাক্তারি করতেও যাচ্ছেন।

ডাক্তারদের ডিগ্রি, ডাক্তারের ডিগ্রি, ডাক্তারদের ডিগ্রী, ডাক্তারের সর্বোচ্চ ডিগ্রী কি, ডাক্তারদের বিভিন্ন ডিগ্রি, বিভিন্ন ডাক্তারি ডিগ্রী,

Leave a Comment