নার্সিং পড়ার খরচ

আনন্দের একজন নার্সকে সাধারণত কোনও চিকিত্সকের সহকারী হিসাবে কোনও হাসপাতাল বা ক্লিনিকের আউটডোর এবং ইনডোর, অপারেটিং থিয়েটারে কাজ করতে হয়। রোগীকে বিভিন্ন উপায়ে ওষুধ খেতে সহায়তা করার পাশাপাশি। বাংলাদেশ নার্সিং কাউন্সিলের মতে, নার্সিং পেশায় দক্ষ ও অভিজ্ঞ ব্যক্তিদের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে, কেবল দেশেই নয় বিদেশেও। বিশেষত মালয়েশিয়া, কাতার, কানাডা, অস্ট্রেলিয়াসহ বিভিন্ন দেশে।

সুতরাং এই পেশায় এখন যেমন শ্রদ্ধা রয়েছে তেমনি সম্ভাবনাও রয়েছে। এখানে অন্যান্য চাকরির মতো পদোন্নতির পাশাপাশি একটি ভাল বেতন এবং অন্যান্য সুবিধা রয়েছে। বদরুলওয়ার বেগম বলেছিলেন যে দক্ষতা এবং জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে নার্সরা সিনিয়র স্টাফ নার্স এবং সুপারিন্টেন্ডেন্ট, নার্সিং প্রশিক্ষণ কলেজের প্রশিক্ষক হতে পারেন। এছাড়াও নার্সরা সরকারের পরিষেবা অধিদফতরে উচ্চ পদস্থ পদে যেতে পারেন।

নার্সিং পড়ার খরচ

সরকারি নার্সিং পড়ার খরচঃ সরকারী নার্সিং কলেজ থেকে নার্সিং কোর্সে বিএসসি করতে চাইলে ব্যয় হবে ১ লাখ থেকে ১ লাখ ৮০ হাজার টাকা। আর বেসরকারী কলেজগুলির ব্যয় হবে চার বছরে ২ থেকে ৩ লাখ টাকা। এবং সরকারী কলেজগুলিতে নার্সিং ডিপ্লোমা করার জন্য কোন কোর্স ফি নেই। প্রতি মাসে তারা ভাতা হিসাবে কিছু টাকা পান।

বেসরকারি নার্সিং পড়ার খরচঃ ২০২০ – ২০২১ শিক্ষাবর্ষের নার্সিং চান্স প্রাপ্ত সকল শিক্ষার্থীর কাছে আমাদের শুভেচ্ছা। এই বছর, আপনি সরকারী পাশাপাশি বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়ন করতে চান, আপনাকে ন্যূনতম ৪০ নম্বর পেতে হবে। অনেকেরই প্রশ্ন আছে, বেসরকারীভাবে নার্সিং পড়তে কত খরচ হয়? এটি আসলে কোর্সের এবং প্রতিষ্ঠানের মানের উপর নির্ভর করে। নার্সিং সায়েন্স ও মিডওয়াইফারিতে ডিপ্লোমা এবং নার্সওয়াইয়ে ডিপ্লোমা করার জন্য প্রতিষ্ঠানগুলিতে সাধারণত ১২০,০০০ হাজার থেকে ১৬০,০০০ টাকা এবং নার্সিংয়ে বিএসসি-র জন্য ১৮,০০০ থেকে ২৬০,০০০ টাকা দিতে হয়। এখানে আরও একটি বিষয় রয়েছে আপনাকে সব প্রতিষ্ঠানে ভর্তি করা যাবে না, আপনাকে দেখতে হবে প্রতিষ্ঠানটি বিএনএমসি অনুমোদিত কিনা। তদুপরি, কম টাকার জন্য অনেককে ভর্তি করার প্রলোভনে বিভ্রান্ত হবেন না। পুরো গবেষণা শেষে আপনারা একটি বেসরকারী সংস্থায় ভর্তি হন। কারণ এখানে সচেতনতার সামান্য অভাব আপনার পুরো ভবিষ্যতের জন্য ক্ষতিকারক হতে পারে।

তবে প্রতিটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে ৫০% দরিদ্র, মেধাবী ও যোগ্য কোটা ভর্তির বিধান রয়েছে।

শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ নার্সিং পেশায় আসতে চাইলে আবেদনকারীকে বাংলাদেশ নার্সিং কাউন্সিল দ্বারা অনুমোদিত যে কোনও নার্সিং ইনস্টিটিউট থেকে নার্সিং বা বিএসসি ইন নার্সিং কোর্স পাশ করতে হবে। সুতরাং আপনি এই কোর্স নিতে পারেন। এবং নার্সিং কোর্সে ডিপ্লোমা করার জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতার জন্য যে কোনও বিভাগ থেকে ন্যূনতম এসএসসি পাসের প্রয়োজন হবে। অন্যদিকে নার্সিং কোর্সে বিএসসি করার জন্য বিজ্ঞান বিভাগ থেকে জীববিজ্ঞান সহ এইচএসসি পাস করতে হবে। এক্ষেত্রে আপনার এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষায় মোট জিপিএ -৬ পয়েন্ট থাকতে হবে। তবে কোনও পরীক্ষায় ন্যূনতম জিপিএ ২.৫ থাকতে হবে। বর্তমানে ডিপ্লোমা ইন নার্সিং কোর্স তিন বছরের জন্য এবং বিএসসি কোর্স চার বছরের জন্য রয়েছে।

নার্সিং প্রতিষ্ঠানে ভর্তির সময় যে বিষয়গুলি মনে রাখা উচিতঃ

একবার আপনি মূল শংসাপত্র এবং মার্কশিট জমা দিলে তারা কোর্স শেষ হওয়ার আগে আপনাকে তা কখনই ফিরিয়ে দেবে না। ফিরে আসার একমাত্র উপায় হ’ল একবারে পুরো কোর্স ফি প্রদানের মাধ্যমে ভর্তি বাতিল করা।

অবশ্যই কম টাকায় কারও সাথে যাবেন না। কারণ, বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নের জন্য উপরে উল্লিখিত অর্থ, অনেক নিম্নমানের প্রতিষ্ঠান আপনাকে এর চেয়ে কম শেখাবে না। এবং ভাল সংস্থা গুলি এর চেয়ে বেশি চার্জ নেয় না ।

বিএনএমসি অনুমোদিত প্রতিষ্ঠান ছাড়া অন্য কোনও প্রতিষ্ঠানে কেন ভর্তি হবেন না। কারন অনেক লোক অজান্তে কারিগরি বোর্ডের সাথে যুক্ত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বিভিন্ন ব্যক্তির মাধ্যমে ভর্তি হন যেখানে তারা পাস করলে তারা বিএনএমসি রেজিস্ট্রেশন পাবেন না, যার ফলস্বরূপ তারা সরকারী চাকরীর জন্য আবেদন করতে পারবেন না।

ভাল বেসরকারী প্রতিষ্ঠান হ’ল ঢাকার অভ্যন্তরে স্কয়ার কলেজ অফ নার্সিং, ইউনাইটেড কলেজ অফ নার্সিং, স্টেট কলেজ অফ হেলথ সায়েন্সেস (ধানমন্ডি)। ইসলামী ব্যাংক নার্সিং কলেজ, নওদাপাড়া রাজশাহীর অভ্যন্তরে। যশোর ও খুলনায় অ্যাডিন নার্সিং ইনস্টিটিউট। কমিউনিটি নার্সিং কলেজ, রংপুরের প্রাইম নার্সিং কলেজ। টিএমএসএস নার্সিং কলেজ, বগুড়ার থেঙ্গামারা। সিলেটের বেগম রাবেয়া খাতুন চৌধুরী নার্সিং কলেজ।


সরকারি নার্সিং পড়ার খরচ ,বিএসসি নার্সিং পড়ার খরচ ,নার্সিং পড়ার খরচ কত ,নার্সিং এ পড়ার খরচ ,নার্সিং পড়তে কত টাকা লাগে ,বেসরকারি নার্সিং পড়ার খরচ ,

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *