বিট কপি চাষ পদ্ধতি

আপনারা আমাদের কাছে জানতে চেয়েছেন যে বিট কপি কী ভাবে  চাষ করা হয় এবং চাষ পদ্ধতি সম্পর্কে কিছু তথ্য। এই পোষ্টিতে আমরা আপনাদের জানানোর চেষ্টা করব উক্ত বিষয় নিয়ে। আধুনিক ফসল চাষা বাদে বিট কপি পিছিয়ে নেই কোন ভাবে। এটি চাষ করে অনেক চাষী ভালো লাভোবান হয়েছে। আপনি যদি এমন ভাবেন তাহলে মনোযোগ দিয়ে পুরো আর্টিকেলটি পড়ুন।

বিট কপি চাষ পদ্ধতি

বিট কপি চাষ পদ্ধতি

বীজ বপন পদ্ধতিঃ- প্রায় ২০ ইঞ্চি দূরে দূরে তৈরীকৃত রিজ/আইলের উপর ২০ সেমি. দূরে দূরে বীজ ২-৩ সেমি. নীচে বপন করতে হবে। কাঙ্খিত গাছের সংখ্যা পাওয়ার জন্য পাশাপাশি দুটি গর্ত করে প্রতিটি গর্তে ১টি করে বীজ বপন করতে হবে এবং পরবর্তী ২০-২৫ দিন পর প্রতি ২০ সেমি. দূরে একটি করে গাছ রেখে বাকী গাছ তুলে ফেলতে হবে।

সার প্রয়োগ পদ্ধতিঃ- জমি চাষ করার পূর্বে সম্পূর্ণ জৈব সার সমানভাবে জমিতে ছিটিয়ে দিতে হবে। রিজ করার পূর্বে সাড়িতে সম্পূর্ণ টিএসপি, জিপিসাম, দস্তা ও বোরন এবং এক তৃতীয়াংশ ইউরিয়া ও পটাশ সার প্রয়োগ করতে হবে। পরবর্তী বীজ বপনের ৩০ও ৬০ দিন পর বাকি ইউরিয়া ও পটাশিয়াম সাড়িতে উপরে প্রয়োগ করতে হবে।

সেচ প্রয়োগঃ- বিট কপি উৎপাদনের জন্য মাটির আর্দ্রতা অবশ্যই ৬৫% এর উপরে রাখতে হবে। বিট কপি এর সক্রিয় মূল প্রায় ২০০-২৫০ সেমি. পর্যন্ত মাটির গভীরে প্রবেশ করতে পারে তাই মাটির ৬০ সেমি. গভীর থেকে সে প্রায় ৭০% পানি গ্রহণ করে।

বিট উত্তোলন ও ফলনঃ-  বিট ফসলটি ৫ থেকে ৫.৫ মাসে উত্তোলনের উপযুক্ত হয়।এজন্য বিটের বয়স ৪ মাস হওয়ার পর প্রতি ১০ দিন পর পর ব্রিক্সের পরিমাণ নির্ণয় করতে হবে। গাছের পাতাগুলো হলুদ হতে শুরু করলে এবং মূলে ব্রিক্সের পরিমাণ ১৮-২২% হলে বিট সংগ্রহ করতে হবে। মাঠ থেকে সাধারণতঃ হাত দিয়ে বিট উত্তোলন করা হয়। বিটের বিঘা প্রতি ফলন ১০.৬৭-১৩.৩৩ টন হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.