মেয়েদের ১০ টি অনলাইন ব্যবসা আইডিয়া, অল্প পুঁজিতে এখনি শুরু করুন।

আপনি যদি মহিলা হন আর নিজস্ব ব্যবসা শুরু করতে চান, তাহলে এই মেয়েদের ১০ টি অনলাইন ব্যবসা আইডিয়া আপনার জন্য। অনলাইন ব্যবসা এমন এক প্রকারের ব্যবসা যেটা শুরু থেকে শেষ অব্দি অনলাইনের মাধ্যমে বা ইন্টারনেটের মাধ্যমে করা হয়। মানে, এই ব্যবসা ইন্টারনেটে সক্রিয় থাকা লোকেদের বা গ্রাহক দের টার্গেট কোরে পণ্য , সার্ভিস বা যেকোনো জিনিস অনলাইনেই বিক্রি কোরে, লাভ আয়ের উদ্দেশ্যে করা হয়। অনলাইন ব্যবসা হল এক ধরনের ব্যবসা যা শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত অনলাইনে বা ইন্টারনেটের মাধ্যমে সকল কাজ করা হয়। এর মানে হল যে ব্যবসাটি গ্রাহকদের লক্ষ্য করে যারা ইন্টারনেটে সক্রিয়, পণ্য, পরিষেবা বা লাভের জন্য অনলাইনে কিছু বিক্রি করে লাভের জন্য।

একজন ব্যবসার মালিক যে তার ব্যবসার কিছু অংশ বা পুরো ব্যবসাটাই ইন্টারনেট ব্যবহার কারাকে অনলাইন ব্যবসা বলা হয়। অনলাইনে ব্যবসা করে সাফল্যের মুখ দেখতে হলে কোন ধরনের ব্যবসা আপনি শুরু করবেন তা নিয়ে আজ আমরা আলোচনা করবো। আপনিযদি এমন আরো তথ্য পেতে চান তাহলে আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করুন।

মেয়েদের ১০ টি অনলাইন ব্যবসা আইডিয়া, এবং কিভাবে অল্প পুঁজিতে এখনি ব্যাবসা শুরু করুন চলুন জেনেনি,

ক্রমিক নং  অনলাইনে ব্যবসা আইডিয়া
০১ ইউটিউব চ্যানেল খুলে আয়
০২ হাতের তৈরি জুয়েলারি করে আয়
০৩ কুটির শিল্প তৈরি করে আয়
০৪ ফ্যাশন ডিজাইনিং করে আয়
০৫ ঘরে খাবার তৈরির ব্যবসা
০৬ ড্রপশিপিং করে আয়
০৭ ব্লগিং করে আয়
০৮ ফ্রিল্যান্সিং করে অনলাইনে ইনকাম
০৯ গ্রাফিক ডিজাইন করে আয়
১০ ই-বুক প্রকাশ করে আয়

মেয়েদের অনলাইন ব্যবসা

(১) ইউটিউব চ্যানেল খুলে আয়

আজ প্রত্যেকের কাছে একটি স্মার্টফোন তাই ইউটিউব দেখে নি এরকম মানুষ খুঁজে পাওয়া খুব দুষ্কার।বর্তমান ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম বেশ সহজ। যেকেউ ইউটিউব চ্যানেল খুলতে পারে। আর তাই আপনি একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলে ভালো অর্থ উপার্জন করতে পারেন।একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলতে, আপনাকে প্রথমে সিদ্ধান্ত নিতে হবে আপনি কোন ধরনের চ্যানেল খুলতে চান। আর আপনি যদি চ্যানেল থেকে দীর্ঘমেয়াদী লাভ করতে চান তবে আপনাকে অবশ্যই এমন কিছু বেছে নিতে হবে যা দীর্ঘ সময় পরেও প্রাসঙ্গিক হবে।

ফলস্বরূপ, ভবিষ্যতে লোকেরা আপনার চ্যানেল দেখলেও আপনি এটি থেকে পরোক্ষভাবে আয় করতে থাকবেন। ইউটিউব কে একটি লাভজনক ব্যবসায় পরিণত করতে, আপনি আপনার YouTube চ্যানেল থেকে অর্থ উপার্জন করতে Google Adsense ব্যবহার করতে পারেন, অথবা একটি অনুমোদিত হতে পারেন বা দর্শকদের কাছে পণ্য বিক্রি করতে পারেন৷ তিনটিই একসঙ্গে ও করা সম্ভব।

(২) হাতের তৈরি জুয়েলারি করে আয়

আপনি কি বিভিন্ন জুয়েলারি বানাতে পারেন? তাহলে আর চিন্তা না করে, আপনার এই অসাধারণ গুণ দিয়েই শুরু করে দিন আপনার বিজনেস। এর জন্য আপনার খুব একটা পুঁজিও প্রয়োজন হবে না। নিজের পছন্দ মতো সুন্দর সুন্দর কিছু জুয়েলারি বানিয়ে শুরু করে দিন আপনার বিজনেসটি। ফেসবুকে পেজ কিংবা গ্রুপ বানিয়ে সবার মধ্যে ছড়িয়ে দিন আপনার আকর্ষণীয় সব হাতের তৈরি জুয়েলারি।

(৩) কুটির শিল্প তৈরি করে আয়

কুটির শিল্প বলতে আমি ঘরে তৈরি পণ্য বলতে চাচ্ছি যা উৎপাদন করতে খুব কম খরচ হয়। কুটির শিল্প গ্রামের মানুষের কাছে লেকশিল্প নামে পরিচিত। গ্রামের কৃষক পরিবারের মেয়েরা ঘরে বসে অবসর সময়ে কুটির শিল্প করে। কুটির শিল্পের চাহিদা যুগ যুগ ধরে রয়েছে এবং থাকবে। কুটির শিল্পের মূল ধারক এবং বাহক নারীরা। অনলাইলে কুটিরশিল্প থেকে বাড়তি আয় উপার্জন করা যাবে। ফলে তাদের জীবনযাত্রার মান উন্নত হবে।

(৪) ফ্যাশন ডিজাইনিং করে আয়

ফ্যাশন ডিজাইন এমন একটি শিল্প মাধ্যম যার সাহায্যে একজন ডিজাইনার তার নিপুণ হাতের ছোঁয়ায় একটি পোশাককে আকর্ষণীয় করে তুলেন। আপনি যদি সৃজনশীল এবং উদ্ভাবনী কিছু করার চ্যালেঞ্জ নেওয়ার কথা ভাবছেন, তবে এই পেশাটি আপনার জন্য। এতে করে আপনি আপনার সৃজনশীলতা ও একাগ্রতা দিয়ে পোশাক শিল্পকে বিশ্ববাজারে আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবেন। বর্তমানে ফ্যাশন ডিজাইনিং একটি জনপ্রিয় পেশা। পোশাক শিল্পে বাংলাদেশ ইতোমধ্যে বিশ্ববাজারে এগিয়ে রয়েছে। অনলাইনে এই ব্যাবসা করে মেয়েরা অনেক টাকা আয় করতে পারে।

(৫) ঘরে খাবার তৈরির ব্যবসা

ঘরে খাবার তৈরির ব্যবসা হতে পারে মহিলাদের জন্য একটি লাভজনক ব্যবসা। বর্তমানে ঘরে বসেই নিজের তৈরি খাবার বিক্রি করে আয় করছেন অনেক মহিলা ব্যবসায়ী। এই ব্যবসা যদি আপনি শুরু করতে চান তাহলে আপনার আগ্রহ, রন্ধনশিল্পে পারদর্শিতা আর কাস্টমারের সঙ্গে ভালো সম্পর্ক রাখার জন্য আপনার স্মার্টনেস প্রয়োজন। আর আপনার রান্নার কৌশলকে আরেকটু উন্নত করতে কিংবা বিশেষ কিছু ফাস্টফুড বা বেকারির খাবার তৈরি শিখে নিতে হবে কারণ বর্তমানে হাতে তৈরি খাবার বিক্রির জন্য এতো এতো সহজ মাধ্যম রয়েছে যে আপনি অবাক হয়ে যাবেন। বর্তমানে  অনেক ফুড ডেলিভারি অ্যাপ রয়েছে যাদের দ্বারা আপনি খুব সহজেই ঘরে বসে আপনার হাতে তৈরি খাবার বিক্রি করতে পারবেন যেমনঃ Foodpanda, Foodpeon, Cookups, Foodtong ইত্যাদি।

(৬) ড্রপশিপিং করে আয়

মহিলাদের জন্য ঘরে বসে আয় করার একটি আদর্শ ব্যবসা হলো এই ড্রপশিপিং। এই ড্রপশিপিং মূলত অনলাইন এর মাধ্যমে এক প্রকার ব্যবসা করার পদ্ধতি। আবার, আপনি মানুষকে কোনো একটি পণ্যের প্রতি আগ্রহ সৃষ্টি করবেন এবং তারা যখন সেই পন্যটি কিনতে আগ্রহী হবে এই সম্পূর্ন কাজের প্রক্রিয়া কে বলা হয় ড্রপশিপিং। এর মাধ্যমে আপনি মানুষের দৈনন্দিন পন্য গুলোর চাহিদা মেটাবেন। কিন্তুু আপনাকে কোনো প্রকার পন্য মজুদ করে রাখতে হবে না। বর্তমান মহিলাদের জন্য ঘরে বসে ব্যবসা করার এটি একটি আদর্শ উপায়। কারণ, অল্প পুঁজিতে লাভজনক ব্যবসা করতে হলে, ড্রপশিপিং-এর জুড়ি নেই। ড্রপশিপিং ব্যবসা শুরু করাও বেশ সহজ কারণ পরের পণ্য নিয়ে ব্যবসা করা এবং এতে কোন পুজি লাগেনা। তাই এটি মেয়েদের জন্য একটি ভালো ব্যবসা। এখনে বর্তমান বেশ কয়েকটি জনপ্রিয় বিজনেস প্ল্যাটফর্ম হল, Amazon FBA, Teespring, Shopify, এবং printful । অ্যামাজনে কিছু বিনিয়োগ প্রয়োজন হলেও বাকি প্ল্যাটফর্মগুলিতে যৎসামান্য বা কোনও পুঁজি ছাড়াই ব্যবসা শুরু করা যায়।

(৭) ব্লগিং করে আয়

আপনি যদি লিখতে ভালোবাসেন তবে আপনি ঘরে বসে ব্লগিং করে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। একটি ব্লগ তৈরি করতে খুব বেশি প্রযুক্তিগত দক্ষতার প্রয়োজন হয় না। আপনার যদি প্রোগ্রামিং সম্পর্কে সামান্য জ্ঞান থাকে বা না থাকে তবুও আপনি আয়ের জন্য একটি ব্লগ তৈরি করতে পারেন। আপনার প্রোগ্রামিং জ্ঞান না থাকলেও বা টাকা খরচ ছাড়া মিনিটের মধ্যে একটি ব্লগ তৈরি করতে পারেন। ব্লগ সাধারণত দুই ধরনের হয়ে থাকে, (১) ব্যক্তিগত ব্লগ ও (২) কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠানের ব্লগ।

ব্যক্তিগত ব্লগগুলোতে সাধারণত ব্যক্তিগত দিনলিপি কিংবা কোনও নির্দিষ্ট বিষয়ের উপর লেখা পাবলিশ করা হয়।  সেটা হতে পারে প্রযুক্তি, ভ্রমণ, রেসিপি, লাইফ স্টাইল, খেলাধুলা ইত্যাদি। আপনি চাইলে এই ব্যক্তিগত ব্লগ খুলে আয় করতে পারেন।

(৮) ফ্রিল্যান্সিং করে অনলাইনে ইনকাম

ফ্রিল্যান্সিং হল মুক্ত পেশা। ঘরে বসে ফ্রি সময় অনলাইনে কাজ করা কে বোঝায়। ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য উল্লেখযোগ্য কিছু স্কিল রয়েছে সেগুলা হল, প্রোগ্রামিং, ওয়েভ ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট, ডিজিটাল মার্কেটিং, ফেসবুকে কিভাবে টাকা আয় করা যায়, এসইও, কনটেন্ট রাইটার, গ্রাফিক্স ডিজাইন ও ভিডিও এডিটর ইত্যাদি। ফ্রিল্যান্সিং এ তেমন কোন খরচ নাই। এই কাজটি মেয়েরা ঘরে বসে ফ্রি সময় করতে পারেন।

(৯) গ্রাফিক ডিজাইন করে আয়

গ্রাফিক ডিজাইন হলো এমন একটি প্রক্রিয়া,যেখান থেকে মহিলারা ঘরে বসে ভাল অর্থ উপার্জন করতে পারেন। যেখানে মহিলারা নিজের ধারণা, শিল্প এবং দক্ষতা ব্যবহার কোরে ছবি, শব্দ, লেখা এবং ধারণার মিশ্রণ কোরে একটি আলাদা এবং নতুন ছবি ইত্যাদি তৈরি করে আয় করা যায়। এ কাজে সফল হওয়ার জন্য আপনার একটা সৃজনশীল মন থাকতে হবে, তার সাথে গ্রাফিক ডিজাইনিং সম্পর্কে ভাল জ্ঞান থাকাও জরুরি। এই কাজে মাধ্যমে ভালো অর্থ উপার্যন করা যায় এবং ঘরে বসেই করা যায়।

(১০) ই-বুক প্রকাশ করে আয়

ই-বুক প্রকাশের মাধ্যমে অনলাইনে ঘরে বসে কাজ করে আয়ের একটি নতুন পদ্ধতি হল। মহিলারা যদি ভাল লেখক হন কিংবা লেখালেখির প্রতি অনেক বেশী আগ্রহী হন, তবে মেয়েরা সহজেই ইবুক লিখে তা অনলাইনে বিক্রি করে ভাল পরিমানের অর্থ আয় করতে পারেন। এই পদ্ধতিতে মেয়েরা কোন ধরনের খরচ হবেনা। অর্থাৎ সম্পূর্ণ বীনা খরচে সকলেই ইবুক লিখে এবং সেটা বিক্রি করে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

এই ছিল আজকে মেয়েদের ব্যবসার আইডিয়া। আশাকরি লেখাটি পড়ে আপনি উপকৃত হয়েছেন। লেখাটি পড়ে আপনার মনে যদি কোন প্রশ্ন থেকে  তাহলে এবং আপনি কোনটি নিয়ে কাজ করতে চাচ্ছেন বা ইচ্ছুক সে সম্পর্কে আমাদের কমেন্ট করে আমাদের জানাতে পারেন।


মেয়েদের জন্য সহজ ব্যবসা, অনলাইনে পোশাক ব্যবসা, অনলাইনে কাপড়ের ব্যবসা করার নিয়ম,আমি অনলাইনে ব্যবসা করতে চাই, অনলাইনে কিভাবে ব্যবসা করব, মেয়েদের জন্য ব্যবসা, মেয়েদের ব্যবসার আইডিয়া, ,অনলাইনে কিভাবে ব্যবসা করা যায়, অনলাইনের ব্যবসা, অনলাইন ব্যবসা করতে চাই, অনলাইন ব্যবসা কিভাবে করব, মহিলাদের ব্যবসা, অনলাইনে কাপড়ের ব্যবসা কিভাবে করব, মেয়েদের ঘরে বসে ব্যবসা, ঘরে বসে মহিলাদের ব্যবসা, বাংলাদেশে অনলাইন ব্যবসা, অনলাইনে থ্রি পিস ব্যবসা, মেয়েদের জন্য লাভজনক ব্যবসা, অনলাইন ব্যবসা কিভাবে শুরু করা যায়,

Leave a Comment